২২ নভেম্বর’ ২০১৩

খবরকাগজ
  • ২২ নভেম্বর’২০১৩

    কর্নাটকের মাদ্দুর শহরের পুরসভা সপ্তাহদুয়েক আগে রাস্তার নেড়ি কুকুর ধরবার একটা অভিযান চালিয়েছিল। কয়েকশো কুকুরকে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে তারা চালান দেয় কাছের মুতাতি অরণ্যের ভেতরে। সেখানে অনেক চিতাবাঘের বাস। কুকুর তাদের প্রিয় খাদ্য। জঙ্গলে অনভিজ্ঞ শহুরে কুকুরদের সেখানে ঢুকলে বেঁচে থাকবার আশা বেজায় কম।
    এই চালান হওয়া কুকুরদের মধ্যে ছিল ভাইরা আর কেঞ্চা নামে দুই মূর্তিমান। শহরের কোট বিঢি মহল্লার বাসিন্দাদের আদরের পুষ্যি ছিল ভাইরা, আর শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ডের দোকানদারদের চোখের মণি ছিল কেঞ্চা।
    ভাইরা আর কেঞ্চাকে ছেড়ে থাকতে তাদের দোপেয়ে বন্ধুরা মোটেই রাজি নয়। অতএব কোট বিঢি মহল্লার লোকজন আর পুরোনো বাসস্ট্যান্ডের দোকানদারেরা জোট বাঁধল। চাঁদা উঠল এক লক্ষ টাকা। দুই মূর্তিমানের সন্ধান দেবার জন্য পুরষ্কার ঘোষণা হল ২৫ হাজার টাকা। তাদের দুজনের ফটো নিয়ে বাসস্ট্যান্ডের দোকানদারেরা মুতাতির জঙ্গলের চারপাশের গ্রামগুলোতে গিয়ে বিলি করতে শুরু করল। আহা কেউ যদি ফটো দেখে কোন খোঁজ দিতে পারে তাদের আদরের ভাইরা আর কেঞ্চার! খোঁজ চলল মুতাতির জঙ্গলেও।
    দু সপ্তাহের দীর্ঘ সেই চেষ্টা সফল হয়েছে অবশেষে। তাদের আদরের বন্ধু ভাইরা আর কেঞ্চাকে মুতাতির জঙ্গল থেকে খুঁজে বের করে আবার নিজেদের মধ্যে ফিরিয়ে এনেছেন তাদের বন্ধুরা। এই বন্ধুরা হলেন আটোকৃষ্ণ, রামচন্দ্র, বালকৃষ্ণ, সোমশেখর এবং অন্যান্যরা। (উৎসঃ দা হিন্দু)