১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫

খবরকাগজ

  • বিভূতিভূষণ


    আশুতোষ ভট্টাচার্য

    ভোরের সূর্য ওঠে দু'একটা পাখি
    কাঠ চাঁপা গাছে বসে দোল খায় ডালে
    ফুলের পাপড়ি রোজ সাজি ভরে রাখি
    মেঘ রোদ মাখামাখি বৃষ্টি সকালে।

    এই নদী তোমারই তো এঁকেবেঁকে চলে
    বনধুঁধুলের লতা, নড়বড়ে সাঁকো,
    কাঁটাগাছ, বাঁশঝাড় এই অঞ্চলে,
    ঢাল জমি শুঁড়িপথ- তুমি ছবি আঁকো।।

    এ পারে মাধবপুর, চায়ের দোকান
    বনশিমতলা যেতে খেয়া পারাপার
    মিছিল, মিটিং আর সিনেমার গান
    চালতা, বাবলা বন গাছ পরিবার।।

    সুবর্ণরেখা আর নদী ইছামতী
    বৈশাখে হাঁটুজল, দুটি ছোটো ছেলে
    বর্ষায় জলে ভাসে, বহু ক্ষয়ক্ষতি
    তেঁতুল, কদম গাছ শীতের বিকেলে।।

    মৃত্তিকা, পুঁইমাচা নবান্ন ঘ্রাণ
    পিঁপড়ের সারি চলে, বোলতার বাসা
    প্রজাপতি, গুলঞ্চ সবজি বাগান
    রামধনু রঙে মেশে কত ভালোবাসা।।

    প্রাচীন শিরীষ গাছ, চেনে প্রত্যেকে,
    কাশবন হাত ধরে দুই ভাইবোন,
    উঠোন, তুলসীতলা আলপনা একে,
    আজও দেখি হেঁটে যান বিভূতিভূষণ।।

    বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় (১২ই সেপ্টেম্বর ১৮৯৪ – ১লা নভেম্বর ১৯৫০)